একটি ভয়ানক ভূতের গল্প

Uncategorized

একটি ভয়ানক ভূতের গল্প|আমার নানির সাথে ঘটে যাওয়া একটি ঘটনা | মা আমাকে বলেছে আজ থেকে  ৩০-৪০ বছর  আগে ঘটনা | আমার সে নানি ছিল খুব গরিব  একজন মানুষ |সে মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাচ্ছা প্রসবের কাজ করত। ঘটনাটি  ঘটেছে খুব শীতের একটি রাতে নানি প্রতিদিনের মত খাবার শেষে ঘুমিয়ে গিয়েছিল। হঠাৎ করে নানির ঘুম ভেঙ্গ যায় নানি শুনতেপায় তার দরজার টক টক টক করে কে যেন টুকা দিচ্ছিল।

নানি উঠে দরজাটা খোলেন তারপর নানি যা দেখলেন তা হলো একজন লোক সাদা কাপড়  পড়াছিল দেখতে অনেকটা পাঞ্জাবি  মত |নানি এ লোকটাকে  আগে কখনও  দেখেনাই । নানি  বলল কে আপনি লোকটি বলল আমি পাশের গ্রামে থাকি খুব বিপদ পরে আমি এসেছি ।লোকটি  বলল তার স্ত্রী সন্তার প্রসব হবে আমার নানিকে যেতে হবে। লোকটি এমনভাবে বলল নানি  তার কথাফেলতে পারলো না।

তারপর নানি লোকটির সাথে চলতে লাগল | লোকটি তাড়াতাড়ি  হাটতে লাগলো। লোকটি নানির থেকে একটু দূরে দূরে হাটতে ছিল নানি বলল আমি  বুড়ো  মানুষ এত তাড়াতাড়ি হাটতে  পারছিনা | লোকটি নানির কোন কথা না শুনে হাটতে লাগল।গ্রামের জঙ্গলের মধ্যে দিয়ে লোকটি যেতে লাগলো। নানি বলল আর কত দূর আপনার বাড়ি লোকটি বলল এই তো সামনে আমার বাড়ি। একটি ভয়ানক ভূতের গল্প

 জঙ্গলটি পাড় হতেই একটি বড় পুকুর পড়লো  লোকটি পুকুরের  পাশদিয়ে  হাটতে লাগলো। হঠাৎ করে লোকটি পুকুরের পানিতে নেমে গেল। নানি তখন বুঝতে পারলো যে তার সাথে খারাপ কিছু ঘটতে চলছে। নানি ভাবতে লাগলো এখন যদি আমি চলে যাই তাহলে লোকটি আমার ক্ষতি করতে পারে।এখন নানির আর বুঝতে অসুবিধা হলো না যে এ জিন। জিনটি পানিতে নামার সাথে সাথে খুব সুন্দর সিঁড়ি হয়ে গেল।  নানি জিন পিছে পিছে হাঁটতে লাগলো। একটি ভয়ানক ভূতের গল্প

একটা প্রাসাদের সামনে গিয়ে উপস্থিত হলো। প্রাসাদটা দেখেতে জমিদারদের প্রাসাদের মতো। প্রাসাদের ভেতর থেকে খুব যন্ত্রণাদায়ক কান্না ভেসে আসছিল। জিনটি নানিকে নিয়ে প্রাসাদের মধ্যে প্রবেশ করলো। যে ঘর থেকে কান্নাভেসে আসছিল নানিকে সেই ঘরে প্রবেশ করানো হয়। নানি দেখল এক মহিলা প্রসব যন্ত্রনায় কাঁদতে ছিল। নানি যেহেতু বাড়ি বাড়ি গিয়ে বাচ্চা প্রসব করা তো তাই তিনি বুঝতে পারলেন যে মহিলাটি অনেক কষ্ট পাচ্ছে।

নানী অনেক চেষ্টার পর বাচ্চাটিকে প্রসব করালেন।জিনটি  নানিকে একটি ইটের সাবান দিয়ে গোসল করতে বললেন। নানিকে গোসল করানোর জন্য একটি পুকুরে নিয়ে গেলেন |পুকুরটা দেখতে অনেকটা আজকে দিনের সুইমিংপুলের মত সেখানে অনেক মহিলা গোসল করতে ছিল। গোসল করা শেষ হলে নানি কে একটি রুমের মধ্যে নিয়ে যাওয়া হয়।সেই রুমের মধ্যে ছিল অনেক রকমের হীরে-মুক্তো, সোনাদানা জিন নানি কে বলল যত খুশি ততো এই রুম থেকে সোনাদানা নিয়ে নাও | একটি ভয়ানক ভূতের গল্প

নানি কিছুই নিতে চাইল না | নানি শুধু বললো যে আমাকে তুমি বাড়ি ফিরিয়ে দাও। জিন বলল অনেকে চেষ্টা করেছে কিন্তু কেউ বাচ্চা প্রসব করাতে পারেনি। তোমার যা চাই তা নিয়ে যাও।নানি  শুধু বলতে থাকলো আমাকে বাড়ি ফিরিয়ে দাও। এদিক দিয়ে নানির বাড়ির লোকজন নানীকে খুঁজতে থাকলো কিন্তু কোথাও পেল না। অবশেষে জিনটি  নানিকে ফিরিয়ে দিয়ে আসলো। ২-৩ দিন পর  নানিকে দেখতে পেয়ে নানির বাড়ির লোকজন জিজ্ঞাসা করলো যে এই দুই-তিনদিন সে কোথায় ছিল |

নানি কিছুই বলল না কারণ জিনটি বলেছিল যদি এ কথা কাউকে বলে তাহলে তার ক্ষতি হবে। তাই নানি কেউ কি কোন কিছু বলল না। পরের দিন থেকে নানির খুব জ্বর। জ্বর কোনভাবেই কমতি ছিল না। নানিকে এক রাতে খুব জ্বর হয় তার | বাড়ির লোকজন ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়ার জন্য রওনা দেয়।  নানি সবসময় সে জিন টিকে দেখতে পাই। যখন ডাক্তারের কাছে নানীকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল  ঠিক সে সময় সেই জিন এসে বলল এই জ্বর কোন ডাক্তারে ভালো করতে পারবে না । একটি ভয়ানক ভূতের গল্প

জিনটি বলে মসজিদের ইমাম সাহেবের কাছে তাকে খালি পায়ে নিয়ে যেতে হবে।জিনটির কথামতো নানিকে মসজিদের ইমাম সাহেবের কাছে নিয়ে যাওয়া হয় | ইমাম সাহেব নানিকে সূরা বলে ফুল দিয়ে দেন। ইমাম সাহেবের কাছে নিয়ে যাওয়ার পর থেকে নানির জ্বর আরো বেশি বেড়ে যায়।জিনটি  আবার নানির কাছে আসে এসে বলে সে খালি পায়ে না গিয়ে জুতা পরে  ইমাম সাহেবের কাছে গিয়েছিল তাই তার  জ্বর আর বেশি হয়েছে।

 নানিকে আবার জীনটি বলে সে যেন খালি পায়ে আবার ইমাম সাহেবের কাছে যাই। নানি আবার ইমাম সাহেবের কাছে গেল তার উপর  নানির জ্বর ভালো হয়ে গেল।কিন্তু  নানি সবসময় সেই জিনটিকে দেখতে পেত এবং জিনটি  সবসময়  নানিকে কিছু না কিছু উপহার দিতে চাইত।কিন্তু নানি তা নিতে চাইত না। জিনটি একদিন  নানিকে তার সেই রাজপ্রাসাদে নিয়ে যেতে চাইল। কিন্তু  নানি তার সাথে যেতে চাইলো না। সে দিন ছিল তার সন্তানের  অনুষ্ঠান ছিল।

যেহেতু নানী তার সন্তান অনুষ্ঠানের যায়নি |  তাই নানির জন্য জিনটি অনেক খাবার-দাবার উপহার নিয়ে আসলো। নানি বলেছে যে যেহেতু তার সন্তানের অনুষ্ঠানের ছিল সেহেতু আমি তা নিলাম। নানি বলেছিল যে জিনটি নাকি তার সন্তানকে নিয়ে এসেছিল  নানির সাথে দেখা করাতে। নানির অবস্থা আস্তে আস্তে উন্নতি হতে থাকে তার দারিদ্র কেটে যায়। গ্রামের লোকজনের মুখে বলতে শোনা যায় | যে নানি নাকি জিনের সম্পদ পেরে ধনী হয়েছিল। একটি ভয়ানক ভূতের গল্প

 এই ছিল আমার নানির সাথে ঘটে  যাওয়া একটি  অলৌকিক ঘটনা।যদি এ ঘটনাটি আপনাদের  ভালো  লেগে থাকে তাহলে কমেন্ট করে জানিয়ে দিন।যদি আপনার সাথে কোন অলৌকিক ঘটনা ঘটে থাকে তাহলে আমাদের ওয়েবসাইটের কমেন্ট বক্সে দিয়ে দিতে পারেন। আমরা আপনার ঘটনাটি  আমাদের  ওয়েবসাইটে  প্রকাশিত করবো। সকলকে ধন্যবাদ | Bangladesh Best 10 প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের খরচ ও সকল তথ্য জানতে ভিজিট করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *