১৭মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও শিশু দিবস উপলক্ষে বক্তব্য

Uncategorized

বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম। বাংলাদেশ টেক্সটাইল ইনস্টিটিউট কর্তৃক আয়োজিত ১৭মার্চ বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন ও শিশু দিবস উপলক্ষে আজকের আলোচনা সভার উপস্থিত সম্মানিত সভাপতি, প্রধান অতিথি ও বিশেষ অতিথি। সেই সাথে উপস্থিত শ্রদ্ধেয় শিক্ষক শিক্ষিকাবৃন্দ ও আমার বড় ভাই ও বোনেরা। আমার সহপাঠীবৃন্দ সকলের প্রতি রইল আমার আন্তরিক শুভেচ্ছা ও সালাম আসসালামু আলাইকুম।

আমি বক্তব্যের শুরুতে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি, জাতির নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। আজকে বাঙালি জাতির অসমাধিত নেতা স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ১০০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে সারাদেশে দিনটি জাতীয় শিশু দিবস হিসেবে উদযাপিত হচ্ছে। আজকের এই দিনে ১৯২০সালের ১৭মার্চ এই দিনে বৃহত্তর ফরিদপুর জেলা তৎকালীন গোপালগঞ্জ মহাকুমার টুঙ্গিপাড়ায় শেখ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।

আমাদের জাতির নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পিতার নাম শেখ লুৎফর রহমান ও মাতা সায়রা খাতুন। পিতা শেখ লুৎফর রহমান ও মা সায়েরা খাতুনের চার কন্যা ও দুই পুত্রের সংসারে তিনি ছিলেন তৃতীয়। সেই শিশুটি পরবর্তীতে হয়ে উঠে নির্যাতিত নিপীড়িত বাঙালির মুক্তির দিশারী। গভীর রাজনৈতিক অঙ্গনে আত্মত্যাগ এবং জনগণের প্রতি মমত্ববোধ এর কারণে পরিণত বয়সে হয়ে ওঠেন বাঙালি অসম্পাদিত নেতা।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন উদার মনের মানুষ। তিনি মানুষের দুঃখ- কষ্ট খুব কাছ থেকে তিনি উপলব্ধি করতেন এবং তা সংশোধন করার চেষ্টা করতেন। বিশ্বের ইতিহাসে ঠাঁই করে নেন স্বাধীন বাংলাদেশের রূপকার হিসেবে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হাত ধরেই আমাদের দেশ মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় স্বাধীনতা লাভ করেছে। তার জন্য আমরা একটা স্বাধীন সার্বভৌম রাষ্ট্র পেয়েছি।

 জন্মদিনে এই মহান নেতাকে আমার বুকের অন্তস্থল থেকে জানাই শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা। ১৯৯৭ সালে ১৭ মার্চ প্রথমবারের নেই এই দিনটি শিশু দিবস হিসেবে উদযাপিত হয় সরকারিভাবে। কিন্তু ২০০১ সালের পর মধ্যখানে চারদলীয় জোট সরকারের হস্তক্ষেপে এই দিনটি রাষ্ট্রীয়ভাবে পালিত না হলেও দলীয় রাজনৈতিক ও বেসরকারিভাবে উদযাপিত হয়েছে।

২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতাসীন হওয়ার পর এই দিনটি ও আগের মতো মর্যাদায় উদযাপিত হয়ে আসছে। এই দিনটি শিশু দিবস হিসেবে নির্দিষ্ট করিবার যথেষ্ট কারণ ও যুক্তি রয়েছে। কেননা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শিশুদের আদর করতেন ভালোবাসতেন মনেপ্রাণে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যদি কোন শিশুকে দেখতেন তাকে কাছে টেনে নিয়ে  আদর করতেন।

তিনি বিশ্বাস করতেন আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ। আজকের শিশুরাই  আগামী দিনে দেশ গড়ার নেতৃত্ব দিবে। এজন্য তিনি চাইতেন শিশুরা জ্ঞানে-বিজ্ঞানে মর্যাদায় সমৃদ্ধ হোক এবং সৃজনশীল এবং মুক্তমানের মানুষ হিসেবে গড়ে উঠুক। বর্তমানে দেশে ১৬কোটি জনসংখ্যার মধ্যে ৬ কোটি শিশু। তাই শিশুদের উন্নয়ন ব্যতীত বাংলাদেশের প্রকৃত উন্নয়ন সম্ভব নয়। আমরা এখন একটি উন্নত দেশের স্বপ্ন স্বপ্ন দেখতেছি। ‌

কিন্তু শিশু অপহরণ, নির্যাতন, হত্যাকান্ড যেভাবে বাড়ছে তাতে আমরা আতঙ্কিত। শিশুর অধিকার নানাভাবে পদদলিত হচ্ছে। গ্রামেগঞ্জে এখনো অনেক শিশুর অপুষ্টি একটি প্রধান সমস্যা।বাংলাদেশের প্রায় অধিকাংশ শিশুর অপুষ্টি জনিত রোগে ভুগে থাকেন যার পরিণাম হয় মৃত্যু। এর মধ্যে সবচাইতে বড় সমস্যা হলো শিশু শ্রম। যখন শিশুদের পাঠশালাতে যাওয়ার কথা তখন শিশুরা ইটের ভাটা, কলকারখানা, গ্যারেজ ইত্যাদিতে কাজ করে। যেখানে বঙ্গবন্ধু বলেছে আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ।

 সেই ভবিষ্যৎ  নষ্ট হয়ে যায় সেই ছোট্ট শিশুকালেই। তাই আমাদের সকলকে শিশুশ্রম বন্ধ করার জন্য এগিয়ে আসতে হবে। এসব সমস্যা কাটিয়ে উঠবার জন্য এবং ঘরে বাইরে শিশুর নিরাপত্তা এবং উন্নয়ন নিশ্চিত করবার জন্য আমাদের সর্বপ্রকার উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে। সকলকে এই ব্যাপারে হতে হবে সচেতন । তবেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা স্বপ্ন পূরণ হবে। আমাদের নৈতিবাচকতাই বদলে দিতে পারে অসহায় ও নির্ধারিত শিশুদের জীবন, তৈরি করতে পারে তাদের সুন্দর ভবিষ্যৎ।

 এতে যেমন একটি দেশ ও জাতি সমৃদ্ধ হবে, তেমনি বিশ্ব হবে আলোকিত। তাই শিশুদের মানসিক বিকাশের উপযুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি চেষ্টা করা। তাদের অধিকার গুলো আদায়ে প্রয়াস হওয়া আমাদের সবারকে এগিয়ে আসা উচিত। আমার বক্তব্য আর দীর্ঘায়িত করবো না। সকল শিশুদের সুস্থতা দীর্ঘায়ু কামনা করে। আমার বক্তব্য এখানেই শেষ করছি। আসসালামু আলাইকুম।

[ প্রিয় পাঠক, আপনিও ourbdtips.com  অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, পরামর্শ, আপনার জেলার খবর, রূপচর্চা, ফ্যাশন, ঘরোয়া টিপস ইত্যাদি বিষয় নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ের ছবিসহ মেইল করুন iam05ashik@gmail.com এই ঠিকানায়। লেখাটি আপনার নামও ছবিসহ প্রকাশিত।] আমাদের ফেসবুক পেজ ourbdtips.com ও আপনার পরামর্শ মতামত জানাতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *